কৃষ্ণ চন্দ্র পরিচয় গোপন রেখে মুসলিম স্কুলছাত্রীর সাথে প্রেম, ধর্ষণের পর হত্যা

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক স্কুলছাত্রীকে (১৫) ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। বেওয়ারিশ হিসেবে লাশ দাফনের ৬ দিন পর এ ঘটনায় প্রেমিকসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার (০৮ আগস্ট) দুপুরে টাঙ্গাইল পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সিরাজ আমীন সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। ধর্ষণের শিকার ওই স্কুলছাত্রী জেলার গোপালপুর উপজেলার বাসিন্দা। এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- উপজেলার বেঙ্গুলা গ্রামের নগেন চন্দ্র দাসের ছেলে কৃষ্ণ চন্দ্র দাস (২৮), ধনবাড়ী উপজেলার ইসপিনজারপুর গ্রামের মোশাররফ হোসেনের ছেলে সৌরভ আহমেদ হৃদয় (২৩), একই গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মেহেদী হাসান টিটু (২৮) ও মজিবর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান (৩৭)। সংবাদ সম্মেলনে পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার বলেন, ‘গ্রেফতারকৃত কৃষ্ণ চন্দ্র দাস প্রতারণা করে ব্যবসায়ী সানি আহমেদ (ছন্দ নাম) পরিচয়ে স্কুলছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্কের পর গত ২ আগস্ট দেখা করার কথা বলে স্কুলছাত্রীকে স্থানীয় বাজারে ডেকে নেয়। পরে রেস্টুরেন্টে খাওয়া-দাওয়ার কথা বলে বন্ধু মিজানুর রহমানের ধনবাড়ী উপজেলার চাঁলাষ মধ্যপাড়া এলাকার ভাড়া বাসায় নিয়ে যায়।

সেখানে যাওয়ার পর স্কুলছাত্রী বুঝতে পারে সানি আহমেদ মুসলিম নয়। তখন স্কুলছাত্রী পালানোর চেষ্টা করলে বাসায় আটকে রাখে। সেখানে কৃষ্ণ চন্দ্র তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। বিষয়টি জানাজানি হওয়ার আশঙ্কায় গলায় গামছা পেঁচিয়ে স্কুলছাত্রীকে হত্যা করে কৃষ্ণ চন্দ্র দাস।’ পুলিশ সুপার আরও বলেন, ‘হত্যার পর সৌরভ, মেহেদী ও মিজানুরকে সঙ্গে নিয়ে লাশ বস্তাবন্দি করে কৃষ্ণ চন্দ্র। পরে সিএনজিচালিত অটোরিকশা ভাড়া করে যমুনা নদীতে ফেলে দেওয়ার জন্য নিয়ে যায়। সেখানে লোকজন থাকায় নদীতে লাশ ফেলতে ব্যর্থ হয় তারা। একপর্যায়ে ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কের পাশে লাশ ফেলে রাখে।

Check Also

আরও ২ মামলায় জামিন পেলেন হেলেনা জাহাঙ্গীর

আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত বিতর্কিত ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীরকে রাজধানীর গুলশান থানায় মাদক ও পল্লবী থানায় প্রতারণা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *