প্রয়োজনে পরীমনিকে রিহ্যাব করানো হোক: আসিফ

মাদক মামলায় গ্রেফতার পর বর্তমানে কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। এই নায়িকাকে গ্রেফতারের পর তার ন্যায়বিচার এবং মুক্তির দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন সাংস্কৃতিক অঙ্গনসহ সুশিল সমাজের এক শ্রেণির মানুষ। এবার কণ্ঠশিল্পী আসিফ আকবরও পরীমনির মুক্তির দাবি জানালেন। পরীমনির মুক্তি চেয়ে শনিবার (১৪ অগাস্ট) সকালে ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দেন আসিফ। স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, ‘ইন্টারন্যাশনাল ম্যাগাজিন ফোর্বস এর বিশ্লেষনে মেয়েটা ছিল শো’বিজে একজন প্রভাবশালী নারী।

বাংলাদেশের ফেসবুক জগতে তার ছিল সর্বোচ্চ কোটি ফলোয়ার। এই নিয়ে মিডিয়াসহ দেশের মানুষের গর্বের শেষ ছিলনা। মা আগুনে পুড়ে মরেছেন দু’মাস কষ্ট পেয়ে। ব্যবসায়িক কারনে মেয়েটার বাবাও খুন হয়েছেন। সাপলুডুর সাপগুলো পুষে মইগুলো বেয়ে বেয়ে মেয়েটা হয়তো একটা জায়গায় পৌঁছেছে। মফস্বলের একটা মেয়ে এত উঁচূতে পৌঁছানোর পেছনে অবশ্যই যোগ্যতা ছিল, রহস্যের তো শেষ নেই। ’ আসিফ শোবিজ অঙ্গনের কথা টেনে লিখেন: ‘রঙ্গীন দুনিয়ায় সব মেয়েরা খারাপ, আর পুরুষরা মহান। তারকাদের প্রতি সাধারণ মানুষের দেয়া সম্মানকে ব্যাকফুটে নিয়ে যাওয়ার জন্য ঘোর একটা গায়েবী অভিশাপ।

মেয়েটা দেশের সবচেয়ে বড় আলোচিত ক্রিমিন্যাল হয়ে গেলো হঠাৎ করেই ??? সারা দেশের গলিতে গলিতে এরকম মজায় মত্ত থাকি আমরা ভোগী পুরুষরা। দোষ হয় শুধু মেয়েদের, সমস্ত অপরাধের কেন্দ্রবিন্দু তারাই। এই মেয়েটা এতোটা পথ কাদের শেল্টারে এসেছে এই রহস্য উন্মোচিত হবে না কখনো। মেয়েটা অবশ্যই ভালো অভিনেত্রী, মেয়েটা দেশকে আরো সার্ভিস দিতে পারতো। দেশ নেয়নি, হয়তো সে মুক্তি পেয়ে আন্তর্জাতিক তারকা হয়ে যাবে। নাচতে নেমে ঘোমটা দেয়ার পুরনো কথাটা মনে পরে গেল। আবার লোকাল ভাষায়- ঘোমটার নীচে পোংটা নাচে, এই বাক্যটাও সামনে চলে এলো।’ ‘বেশী লেখার সাহস আমার নাই। আমি নিজেও প্রতিদিন যে কোনো সরকারী বাহিনীর রেইডের অপেক্ষায় থাকি।আকাশের যত তারা, …. ততো ধারা ফর্মুলাটা খুব মানি।

সাত সাগর তেরো নদী পার হয়ে এতো মদ আর মাদক দেশে আসে কিভাবে? এর কোনো যুক্তিযুক্ত উত্তর কি রাষ্ট্রের কাছে পাবো?’ প্রশ্ন রেখে আসিফ ফেইসবুক স্ট্যাটাসে আরো লিখেছেন: ‘… হরহামেশাই মিডিয়া এবং সোশ্যাল মিডিয়ার ট্রায়ালের শিকার হতে হয় শো’বিজের মানুষদের। একটা রমরমা রসাত্মক গল্প কয়দিন চলে। দেশে আসলে এসব ছাড়াও কোটি সমস্যা আছে। চারঘণ্টা রুদ্ধশ্বাস অভিযানে গ্রেপ্তার হওয়া মেয়েটার কপাল ভাল হাতকড়া পরতে হয়নি, আমি এই দেশে জাতীয় পুরস্কারের সাথে হাতকড়াও উপহার পেয়েছি। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই দাবি জানাই পরীমনির মুক্তি চাই। প্রয়োজনে তাকে রিহ্যাব করানো হোক। সে ভয়ঙ্কর অপরাধী নয়, অভিভাবকহীনতার শিকার একটা লক্ষ্যহীন নৌকা মাত্র।’ লিখেছেন আসিফ।

Check Also

আবরারের পরিবারকে ১২ বছর মাসিক ৭৫ হাজার টাকা দেবে বুয়েট!

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) আগামী ১২ বছরের জন্য নিহত বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *