শাকিবের পর পরীমনির পাশে ওমর সানী, ছুড়ে দিলেন প্রশ্ন

র‌্যাব হাতে গত ৪ আগস্ট বনানীর বাসা থেকে আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনিকে আটকের পর র‌্যাব সদরদপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়।প্রায় ২০ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পরদিন সন্ধ্যায় বনানী থানায় তাকে হস্তান্তর করে র‌্যাব। এরপর র‌্যাব বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে। সেই মামলায় দুই দফায় ছয়দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে।ঢালিউডের আলোচিত নায়িকা পরীমনির জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।বর্তমানে তিনি গাজীপুরের কেন্দ্রীয় কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন।

এ ঘটনায় শোবিজ অঙ্গনের অনেকেই পরীমনির পক্ষে এসে দাঁড়িয়েছেন গত কয়েকদিনে। বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক ও অভিনেতা কাজী হায়াৎ পরীমনিকে নিয়ে গণমাধ্যমে মতামত লিখেছেন। পরীমনির পাশে দাঁড়িয়েছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দুইবারের সাবেক সভাপতি ও জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খান,কণ্ঠশিল্পী কোনাল এবং দিনাত জাহান মুন্নী’সহ আরও অনেকেই পরীর পাশে দাঁড়িয়েছেন।তার পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। তার মুক্তির দাবি তুলেছেন।এবার পরীমনির পক্ষ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করেছেন জনপ্রিয় নায়ক ওমর সানী।মর সানীর সেই পোস্ট হুবহু প্রতিঘণ্টা ডটকম-এর পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো:

ওমর সানী তার ফেসবুকে লেখেন,আইন বলে ইনোসেন্ট, A person is innocent until proven guilty. যতক্ষণ পর্যন্ত অপরাধ প্রমাণ না হয়, ততক্ষণ পর্যন্ত ওই ব্যক্তি কেবল অপরাধের জন্য অভিযুক্ত, দোষী নয়।কিন্তু পরীমনিকে গ্রেফতারের পর থেকে আমরা কি দেখলাম ? চলচ্চিত্র থেকেই তাকে বের করে দেয়া হচ্ছে। সংবাদ সম্মেলন করে তাকে অপরাধী প্রমাণ হবার আগে আমরা শাস্তি দিয়ে দিলাম।বাংলা সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি সম্পর্কে, বিনোদন জগৎ সম্পর্কে সাধারণ জনগণের মনকে বিষিয়ে দেওয়া হলো না? এর আগেও তো একজন নামী অভিনেতা,প্রযোজক জেল খেটেছেন।কই তাঁর বেলায় তো এই নিয়ম ছিল না।যাই হোক এবার মূল কথায় আসি। পরীমণির বাড়ি থেকে যে পরিমাণ মদের বোতল উদ্ধার করা হয়েছে,

তা দেখে প্রশ্ন জাগে এই পরিমাণ বোতল তো পরীমণি বাড়ির পাশের মুদির দোকান থেকে কেনেনি বা নিজে বাড়িতে তৈরি করেনি।তাহলে এই মাদকদ্রব্যের সরবরাহ কোথা থেকে হলো,কার কাছ থেকে এগুলো কিনলো বা সংগ্রহ করলো।মূল রাঘব বোয়ালদের আগে ধরতে হবে। তারা সব সময়ই আড়ালে থেকে যায়।আমি জানি না পরীমণি মূল

অপরাধী কি-না।তবে চলচ্চিত্রের একজন শিল্পী হিসেবে বুঝি মুম্বাইয়ের চিত্রজগতে যা ঘটেছিল,এক প্রভাবশালী ধনী ব্যবসায়ী এক সুন্দরী নায়িকাকে তার লালসার শিকার করতে না পেরে তার বন্ধু একজনের সহায়তায় তাকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে যেভাবে তার জীবন ও ক্যারিয়ার ধ্বংস করেছিল,ঢাকায় পরীমণির ক্ষেত্রে সেই ষড়যন্ত্রের যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে। আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরীও সেই কথাটা বলেছেন একটা লেখায়।

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *