শিশুদের সাজা দেওয়া সেই ম্যাজিস্ট্রেটের নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা

বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে নেত্রকোনায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে দুই শিশুর সাজা দেওয়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুলতানা রাজিয়া নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন। জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জমা দেওয়া লিখিত ব্যাখ্যায় ক্ষমা প্রার্থনার বিষয়টি উল্লেখ করেন তিনি। পাশাপাশি ভবিষ্যতে এমন ঘটনা যাতে আর না ঘটে, সে বিষয়ে তিনি সচেষ্ট থাকবেন মর্মে অঙ্গীকারও করেছেন।

বৃহস্পতিবার নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজি মো. আবদুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুলতানা রাজিয়া লিখিত ব্যাখ্যায় উল্লেখ করেছেন, ‘বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন, ২০১৭–এর ৭(২) ধারায় অপরাধ স্বীকার করায়, উভয়ের জীবন রক্ষার্থে, তাদের উত্তম স্বার্থ ও উজ্জ্বল ভবিষ্যতের বিষয়টি বিবেচনা করে এই দণ্ড প্রদান করা হয়।’

বিজ্ঞাপন
লিখিত ব্যাখ্যায় রাজিয়া আরও উল্লেখ করেন, ‘অপ্রাপ্তবয়স্ক নারী বা পুরুষের বাল্যবিবাহ সংঘটনের অপরাধের বিষয়ে দণ্ডাদেশের ক্ষেত্রে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন, ২০১৭–এর ৭(৩) ধারায় শিশু আইন, ২০১৩–এর বিধানাবলি প্রযোজ্য হবে মর্মে উল্লেখ রয়েছে। অপর দিকে, বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন, ২০১৭–এর ১৭ ধারায় বলা আছে, আপাতত বলবৎ অন্য কোনো আইনে যাহা কিছুই থাকুক না কেন, এই আইনের অধীন সংঘটিত অপরাধের ক্ষেত্রে মোবাইল কোর্ট দণ্ড আরোপ করিতে পারিবে। এমতাবস্থায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের দণ্ড প্রদানের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য আমি খুব অনুতপ্ত এবং সরল বিশ্বাসে কৃতকর্মের জন্য নিঃশর্ত ক্ষমাপ্রার্থী।’

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সুহেল মাহমুদ জানান, সুলতানা রাজিয়ার কাছ থেকে পাওয়া লিখিত বক্তব্যের অনুলিপি হাইকোর্টের নির্দেশে ২২ আগস্ট প্রেরণ করা হয়েছে।

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *