বইয়ের তাকে সাজিয়ে রেখেছেন মাথার খুলি

তালেবানের গুলিতে বিদ্ধ হওয়ার ৯ বছর পর পাকিস্তানের ক্ষুদে মানবাধিকার কর্মী ও নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী মালালা ইউসুফজাই সশস্ত্র ইসলামি এই গোষ্ঠীর আফগানিস্তানের ক্ষমতায় ফেরা নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তালেবান ক্ষমতায় ফেরায় আফগান নাগরিকদের দুর্দশার প্রতি বিশ্বের মনোযোগ আকর্ষণের ওপর আবারও জোর দেওয়া প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

পোডিয়ামে প্রকাশিত এক পোস্টে ২৪ বছর বয়সী এই মানবাধিকার কর্মী বলেছেন, আমি সেসব মানুষদের হাতে একের পর এক প্রদেশ পতন হতে দেখেছি; যাদের হাতে বুলেটভর্তি বন্দুক। একেকটি প্রদেশের পতনে আমার মনে হয়েছে, আমাকে একে একে গুলি করা হচ্ছে। পাকিস্তানে তালেবানের সদস্যরা ২০১২ সালে নারী শিক্ষা অধিকার নিয়ে কাজ করা মালালা ইউসুফজাইয়ের মাথায় গুলি করে। সেই স্মৃতিচারণ করে মালালা লিখেছেন, ২০১২ সালের অক্টোবরের কথা। পাকিস্তানি তালেবানের এক সদস্য আমার স্কুল বাসে উঠেছিল এবং আমার মাথার বামপাশে একটি গুলি ছোড়ে। বুলেটটি আমার বাম চোখ, মাথার খুলি এবং মস্তিষ্কে আঘাত হানে— আমার ত্বকে ক্ষত সৃষ্টি করে, কানের পর্দা ফেটে যায় এবং চোয়াল ভেঙে যায়।

পাক এই মানবাধিকার কর্মী সেদিনের ঘটনার পরের স্মৃতি তুলে করেছেন। যদিও যেদিন গুলি করা হয়েছিল সেদিনের ঘটনা এখনও মনে করতে পারেন না তিনি। পোস্টে শারীরিক এবং মানসিক ভয়ের ব্যাপারে কথা বলেছেন মালালা ইউসুফজাই। বলেছেন, তিনি এবং তার বন্ধুরা যারা ওই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন; তারা এখনও সেই ভয়ানক স্মৃতি সঙ্গী করে চলছেন। মালালা লিখেছেন, আমি এখনও সেই দাগ বহন করছি; যেখান থেকে চিকিৎসকরা বুলেটটি সরিয়ে দিয়েছেন।

কিছু দিন আগে মালালা তার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ এক বন্ধুকে ফোন করেছিলেন; গুলিবিদ্ধ হওয়ার দিন বাসে তার পাশেই বসা ছিলেন সেই বন্ধু। সেদিনের কোনও কিছুই মনে না থাকায় ৯ বছর আগের ওই দিন কি ঘটেছিল তা জানতে বন্ধুকে ফোন করেন মালালা। বন্ধুর কাছে জানতে চান, ‘আমি কি সেদিন চিৎকার করেছিলাম? আমি কি পালানোর চেষ্টা করেছিলাম?’ জবাবে তার বন্ধু বলেন, ‘না। তালেবানের ওই সদস্য বাসে দাঁড়িয়ে মালালা কে জানতে চাওয়ায় তুমি চুপচাপ দাঁড়িয়ে তার মুখের দিকে তাকিয়েছিলে। তুমি আমার হাত এত শক্ত করে ধরে রেখেছ যে, আমি কয়েকদিন ধরে ব্যথা অনুভব করেছি।’

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *