দিনমজুর থেকে যেভাবে কোটিপতি হলেন জ্যোতি

মাত্র ৯ বছর বয়স থেকেই অনাথ আশ্রমে বেড়ে ওঠেন তিনি। অত্যন্ত দরিদ্র পরিবারে জন্ম হয় জ্যোতির। ৫ ভাই-বোনকে আদর যত্নে রাখতে ব্যর্থ ছিলেন তাদের বাবা। মেয়েদের মুখে যাতে দুই বেলা খাবার জোটে এজন্যই বাবা জ্যোতি ও তার এক বোনকে অনাথ আশ্রমে রেখে আসেন।সেই জ্যোতিই আজ নিজের ভাগ্য বদলেছেন পরিশ্রমের মাধ্যমে। একসময় মাত্র ৫ টাকার দিনমজুর ছিলেন। আজ তিনি কোটিপতি। তার মোট সম্পদের পরিমাণ জানলে রীতিমতো অবাক হয়ে যাবেন।

১৯৭০ সালে তেলঙ্গানার ওয়ারাঙ্গলের জন্মগ্রহণ করেন জ্যোতি রেড্ডি। দরিদ্র পরিবারে জন্ম হওয়ায় জ্যোতির ঠিকানা হয় অনাথ আশ্রমে। বাবা-মা থাকা স্বত্ত্বেও অনাথ হওয়ার ভান করতেন তিনি। কারণ দুই বেলা খাবার না পেলে তিনি বাঁচবেন না যে!অনাথ আশ্রমে যাওয়ার কিছুদিন পরই জ্যোতির বোন অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে মা-বাবার কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। তবে জ্যোতির দিন কাটতে থাকে সেখোনেই। আশ্রমে থেকেই ১০ম শ্রেণি পাশ করেন জ্যোতি।

১৬ বছর বয়সে জ্যোতি বিয়ে করনে স্যামি রেড্ডি নামের এক যুবককে। জ্যোতির চেয়ে ১০ বছরের বড় ছিলেন স্যামি। সম্পত্তি বলতে তার শুধু নিজের এক টুকরো জমি ছিল। সেই জমিতেই ফসল ফলিয়ে সংসার চালাতেন তিনি।বিয়ের পর দুই সন্তান মা হন জ্যোতি। স্বামীর সঙ্গে নিজেও মাঠে কাজ করতে নামেন তিনি। টানা ১০ ঘণ্টা কাজ করে দিনে ৫ টাকা উপার্জন ছিল তার। এরপর নিজের মেধা কাজে লাগিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের নেহরু যুব কেন্দ্রের শিক্ষক হিসেবে কাজে যোগ দেন।

সারাদিন ছেলে-মেয়েদের পড়াতেন আর রাতে সেলাই করে উপার্জন করতেন পরশ্রমী এই নারী। সংসার, স্বামী-সন্তানের দেখভালের পরও জ্যোতি আরও পড়াশোনা করতে চাইলেন। তার স্বামীও বাঁধা দিলেন না।ডক্টর বিআর আম্বেডকর মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক সম্পন্ন করেন জ্যোতি।

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *