মহাসড়কের মাঝখানে কচুর হাট

রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের উপর হাট বসছে গত এক দশক ধরে। অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বড় ধরনের কোন দুর্ঘটনার জন্য অপেক্ষা করছেন? আশ্চর্যজনক হলেও সত্য যে, উপজেলার খেদমতপুর কচুর হাট বসে প্রতিদিন মহাসড়কের মাঝখানে। আর দু’পাশের সড়ক দিয়ে আন্ত:জেলা ও দুরপাল্লার যান চলাচল করে, চলে ট্রাক বাস মিনিবাস ও প্রাইভেট কার।

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার একমাত্র বিশাল কচুরহাট খেজমতপুর গনিরহাট নামে পরিচিত। চলতি বছরও এই হাটটি ১৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা ইজারা দিয়েছে। প্রতিদিন নিয়মিত বিকেল থেকে রাত ৮ পর্যন্ত হাজার হাজার লোকজন কচু কেনা বেচা করে। ট্রাকযোগে তা চলে যায় দেশের বিভন্ন স্থানে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ব্যবসায়ীরা আসেন কচু সংগ্রহ করতে।

জানা গেছে, কচুর হাটের জন্য ১ একর ৯ শতক জমি রয়েছে। তার পরেও হাটের সাথে সংশ্লিষ্টরা মহাসড়কের মাঝখানে হাট বসিয়েছেন। হাটে কচু বিক্রি করতে আসা রহমত আলী, খাদেমুল ইসলাম বলেন হাটটি এখানে বসানো ঠিক হয়নি যে-কোন মুহুর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনার ঘটতে পারে। আমি এ হাটে এসে সব সময় ভয়ের মধ্যে থাকি।

হাট কর্তৃপক্ষ জানান, হাটের পক্ষ থেকে ১০ জন লোক হাট শুরু থেকে শেষ হওয়া পর্যন্ত সতর্ক সংকেতের জন্য রাখা হয়েছে বিশেষ নজরদারির জন্য। যাতে কোন দুর্ঘটনা না ঘটে। এছাড়াও মহাসড়ক নির্মানকারী প্রতিষ্ঠান চায়না কোম্পানির অনুমতি নিয়েই উক্ত স্থানে হাট বসানো হয়েছে। হাট ইজারাদার মোফাজ্জল হোসেন বাদল মাষ্টারের সাথে কথা হলে তিনি বলেন,

এই হাটটি আগে থেকেই মহাসড়কের দুই পাশে বসে। রাস্তার দু পাশে কাজ চলমান রয়েছে কারণে আমরা রাস্তার মাঝখানে হাট বসিয়েছি। তিনি আরও বলেন, অই হাটের নামে যে জায়গা রয়েছে, সেখানে ট্রাক যেতে পারে না। এজন্য কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেই হাট বসানো হয়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিরোদা রানী রায় কে কয়েকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *