পরিকল্পনায় পুত্রবধূ, সহযোগিতায় খালাতো ভাইসহ দুজন

কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার সুবর্ণপুর গ্রামের পল্লিচিকিৎসক সৈয়দ বিল্লাল হোসেন ও তাঁর স্ত্রী সফুরা খাতুনকে হাত–পা বেঁধে শ্বাসরোধে মৃত্যু নিশ্চিত করেন পুত্রবধূ নাজমুন নাহার চৌধুরী, তাঁর খালাতো ভাই জহিরুল ইসলাম মজুমদার ও তাঁদের সহযোগী মেহেদী হাসান । আজ মঙ্গলবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে এসব কথা বলেন কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী মো. আবদুর রহীম।

কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে বলা হয়, গ্রেপ্তার ওই তিনজন পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।

তিনজনের মধ্যে নাজমুন নাহার (২৫) নিহত দম্পতির বড় ছেলে দুবাইপ্রবাসী সৈয়দ আমানউল্লাহর স্ত্রী। নাজমুনের খালাতো ভাই জহিরুল ইসলামের (১৯) বাড়ি কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার কোদালিয়া গ্রামে। আর তাঁদের সহযোগী মেহেদী হাসানের (১৮) বাড়ি কুমিল্লার লালমাই উপজেলার দক্ষিণ জয়কামতা গ্রামে।

বিজ্ঞাপন
আরও পড়ুন
কুমিল্লায় স্বামী-স্ত্রী হত্যার ঘটনায় পুত্রবধূ আটক
কুমিল্লায় স্বামী-স্ত্রী হত্যার ঘটনায় পুত্রবধূ আটক
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ৫ সেপ্টেম্বর রাত আটটায় নাজমুন তাঁর খালাতো ভাই জহিরুলকে কয়েক বন্ধুসহ সুবর্ণপুর গ্রামে আসতে বলেন। রাত নয়টায় জহিরুল তাঁর বন্ধু মেহেদীকে নিয়ে নাজমুনের শ্বশুরবাড়ি যান। নাজমুন দরজা খুলে দিলে তাঁরা ঘরে ঢোকেন। পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী নাজমুন তাঁর ওড়না দিয়ে সফুরা খাতুনের মুখ চেপে ধরেন। এরপর তাঁর হাত-পা বেঁধে ফেলেন জহিরুল ও মেহেদী। সফুরাকে খাটে ফেলে দেন তাঁরা। এরপর কম্বলচাপা দিয়ে শ্বাসরোধে তাঁকে হত্যা করেন নাজমুন। ঘটনার সময় বিল্লাল হোসেন বাড়িতে ছিলেন না। কিছুক্ষণ পর তিনি ফেরেন। এ সময় তাঁকেও একই কায়দায় হত্যা করা হয়।

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *