মৃত থেকে যেভাবে জীবিত হলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধা আছিয়া

অবশেষে ভোটার তালিকায় জীবিত হলেন কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের আছিয়া খাতুন, যাকে ভোটার তালিকা হালনাগাদের সময় মৃত দেখানো হয়েছিল। একজন মানবিক মানুষের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় আবেদন থেকে শুরু করে মৃত থেকে জীবিত হওয়ার পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে তার। এমনকি ইতোমধ্যে বয়স্ক ভাতার জন্যও আবেদন করেছেন তিনি। আছিয়া খাতুন কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার গড় মাছুয়া নামাপাড়া গ্রামের হাফিজ উদ্দিনের স্ত্রী।

জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী তার বয়স ৭৩ বছরেরও কিছু বেশি। সমাজসেবা অধিদপ্তরের নিয়ম অনুযায়ী মহিলাদের ক্ষেত্রে বয়স্কভাতা পেতে হলে ৬২ বছর হলেই চলে। কিন্তু বেঁচে থাকলেও ভোটার তালিকায় তাকে মৃত দেখানো হয়েছিল। ফলে বয়স্ক ভাতার আবেদন করতে পারছিলেন না তিনি।

এমনকি গুরুতর এ ভুল সংশোধনে কি করবেন, সেটিও ভেবে পাচ্ছিল না ভুক্তভোগী পরিবারটি। এ নিয়ে গত ২২ আগস্ট সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদটি দেখে বৃদ্ধা আছিয়া খাতুনকে সহযোগিতা করার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেন আসমা চৌধুরী নামে জেলা শহরের বাসিন্দা একজন মানবিক মানুষ। তিনি সদরের সতাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। সংবাদ প্রকাশের পর আছিয়া খাতুনের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন আসমা চৌধুরী।

এরপর থেকে শুরু হয় তার দৌড়ঝাঁপ। আছিয়া খাতুনকে নির্বাচন অফিসে আনা থেকে শুরু করে আবেদন করানো সবই অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে সম্পন্ন করান তিনি। কেবল আবেদন করিয়েই দায়িত্ব শেষ না করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে নিবিড় যোগাযোগের মাধ্যমে অত্যন্ত দ্রুততার সাথে সংশোধনের মাধ্যমে ভোটার তালিকায় আছিয়া খাতুনকে জীবিত হিসেবে লিপিবদ্ধ করাতে সক্ষম হন আসমা চৌধুরী।

Check Also

৫ অক্টোবর ঢাবির হল খোলার সুপারিশ প্রভোস্ট কমিটির

করোনা পরিস্থিতির কারণে প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ থাকা আবাসিক হলগুলো খুলে দেওয়ার সুপারিশ করেছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *