অন্ধ মুয়াজ্জিনের অসাধারণ প্রতিভা

দু’চোখে নেই কোনো আলো। লাঠি হাতে ধরে রাস্তায় ঠক ঠক করে চলছেন চল্লিশোর্ধ মো. মনির হোসেন। শারীরিক প্রতিবন্ধকতায় লেখাপড়ার সুযোগ না পেলে ও তার রয়েছে অত্যন্ত প্রখর স্মরণশক্তি।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে গ্রামের গণ্যমাণ্য ব্যক্তি, আলেম উলামা, মাশায়েখসহ অনেক লোকজনের মোবাইল নম্বর মুখস্থ বলতে পারেন তিনি। সেই সঙ্গে কারো মোবাইল নম্বর বলার সঙ্গে সঙ্গে নাম্বার লাগিয়ে বলতে পারেন কথা। মোবাইল ফোনে গলার কণ্ঠ শুনে বলে দিতে পারেন ওই ব্যক্তি কে। তাছাড়া স্থানীয় একটি মসজিদে মুয়াজ্জিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।
অসাধারণ প্রতিভাবান মনির হোসেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার দক্ষিণ ইউনিয়নের হীরাপুর বড় কুড়ি পাইকা গ্রামের আব্দুল হাকিমের ছেলে। তার পরিবারে ২ ছেলে ২ মেয়েসহ ৬ জন সদস্য রয়েছে। স্বাভাবিকভাবে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীর পক্ষে যা একেবারে অসাধ্য, তাই তিনি এক প্রকার সাধন করে দেখিয়েছেন।

স্থানীয়রা বলেন, প্রতিবন্ধী হয়েও ঘরে বসে থাকেননি তিনি। নিজের ইচ্ছা শক্তিকে কাজে লাগিয়ে কিছু ধর্মী শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে বড় কুড়িপাইকা জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন হিসেবে দিচ্ছেন দৈনিক ৫ বেলা আজান। কোনো সময় ইমাম না থাকলে তাকে নামাজও পড়াতে হয়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ অনেক আলেম উলামা ও তাবলীগ জামায়াতের অনেক লোকজনের নাম ও মোবাইল নম্বর হুবহু বলতে পারেন তিনি। তাছাড়া মোবাইল নম্বরের শেষ দুই ডিজিট বললেই তিনি বুঝতে পারেন ওটা কার নাম্বার।

মুয়াজ্জিন মনির হোসেনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মসজিদ থেকে ৫০০ গজ দূরে একটি বাড়িতে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছেন। এখানে কোনো তার জায়গা জমি বলেতে কিছুই নেই। অন্যের জায়গায় ছোট একটি ঘরে পরিবার নিয়ে থাকছেন। তার চলার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে হাতে থাকা একটি লাঠি। সকাল বিকেল রাতে মসজিদ ও জরুরি প্রয়োজনে কোথাও যেতে হলে এ লাঠির সাহায্যে তাকে চলতে হয়। দৈনিক ৫ ওয়াক্ত মসজিদে আজান দিতে তাকে নির্ধারিত সময়ের আগে পৌঁছে যান তিনি।

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *