খালে পড়া ছালেহ আহমেদ কোথায়, কেউ জানে না

২০ দিন আগে পা পিছলে খালে পড়ে গিয়েছিলেন ছালেহ আহমেদ। টানা বৃষ্টিতে প্রতিবছরের মতো এবারও চট্টগ্রাম নগরে জলাবদ্ধতা হয়। পানিতে সড়ক ও খাল-নালা একাকার হয়ে যায়। দোকানে যাওয়ার পথে গত ২৫ আগস্ট খালে পড়ে যান ছালেহ আহমেদ। এখনো তাঁর খোঁজ পাওয়া যায়নি। তিনি বেঁচে আছেন, না মারা গেছেন, মারা গেলে তাঁর লাশ কোথায় আটকে আছে, নিশ্চিত করে বলতে পারছে না ফায়ার সার্ভিস।

পরিবার ছালেহ আহমেদের বেঁচে থাকার আশা ছেড়ে দিয়েছে। তারা চায় ছালেহ আহমেদের লাশের কিছু অংশ। তাহলে অন্তত কবর তো দিতে পারবে। ছালেহ আহমেদের মা জাহানারা বেগমের (৮০) হাহাকার এখনো থামেনি। ঘুমের ঘোরেও তিনি ‘অ পুত’, ‘অ পুত’ বলে চিৎকার করে ওঠেন। প্রথম আলোকে বলেন, নিখোঁজের আগের রাতে ফোন করেছিলেন ছেলে। পরদিন মাইজভান্ডারে যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। কিন্তু ছেলে যে এভাবে হারিয়ে যাবেন, তা তিনি জানতেন না।

বিজ্ঞাপন
ছেলের জন্য মায়ের কান্না থামছিল না। এই কান্না ছড়িয়ে পড়ে পরিবারের অন্য সদস্যদের মধ্যেও। কান্নাজড়িত কণ্ঠে মায়ের আকুতি, ‘পুতরে তো আর জ্যাঁতা ন ফাইওম। আড্ডি যদি ফাইতাম, কবর অইলে দিইয়ারে শান্তি ফাইতাম। (ছেলেকে তো আর জীবিত পাব না। তাঁর হাঁড় যদি পেতাম, তা কবর দিয়ে শান্তি পেতাম।)’

ছেলে হারানোর কি সান্ত্বনা হয়? স্বজন আর পাড়া-প্রতিবেশীদের শত আশ্বাসেও মায়ের মনের দুঃখ দূর হচ্ছে না। ছেলে যে জীবিত ফিরে আসবেন—এই আশা দুরাশায় পরিণত হয়েছে। এখন অপেক্ষা কোনো রকম লাশটি ফিরে পাওয়ার। কিন্তু তা-ও যেন দিন দিন ধূসর হয়ে পড়ছে।

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *