সোনার চেয়ে নয় গুণ দামি পণ্য নিয়ে রহস্য

নাম রোডিয়াম। দুর্লভ ও মহামূল্যবান ধাতু হিসেবে পরিচিত এটি। খুব সামান্য পরিমাণে আমদানি হওয়া এই পণ্য নিয়ে এখন হুলুস্থুল চলছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে।
চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে চীন থেকে এই পণ্যটি এনেছে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের নাসির ওপাল গ্লাস অ্যান্ড ক্রোকারিজ লিমিটেড। আমদানির ঘোষণায় পণ্যটির নাম রয়েছে ‘প্লাটিনাম রোডিয়াম কভার’। আনা হয়েছে কাঠের ছোট বাক্সে। তাতে ছোট আকারের ফানেলের মতো নয়টি পণ্য রয়েছে। শিল্পে ব্যবহারের জন্য এই পণ্য আনা হয়েছে বলে জানিয়েছে নাসির গ্রুপ।

বিজ্ঞাপন
আমদানিকারক ঘোষণা দেন, মাত্র ২০০ গ্রাম ওজনের পণ্যটির আমদানি মূল্য সাড়ে ৩৮ হাজার মার্কিন ডলার। ওজন ও দাম দেখে এই পণ্য পরীক্ষা করে খালাসের সিদ্ধান্ত দেয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। ৬ সেপ্টেম্বর প্রথম কায়িক পরীক্ষা হয়। তাতে দেখা যায়, পণ্যটির ওজন ৮১৫ গ্রাম। আমদানিকারকের ঘোষণা ছিল ২০০ গ্রাম। ঘোষণার চেয়ে তিন গুণ বেশি ওজনের পণ্য পাওয়ায় খালাস স্থগিত করে দেয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

কিটকো ও মানিমেটালস ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্ববাজারে গতকাল প্রতি কেজি রোডিয়ামের মূল্য ছিল ৪ লাখ ৮১ হাজার ডলার বা ৪ কোটি ১১ লাখ টাকা। এই দাম সোনার চেয়ে নয় গুণ বেশি। মূলত পরিবেশবান্ধব বৈদ্যুতিক গাড়িশিল্পে রোডিয়ামের ব্যবহার বেশি। ক্ষয়নিরোধী প্রলেপ হিসেবেও এটি ব্যবহার করা হয়

Check Also

অনলাইন থেকে শুক্রাণু কিনে ‘ই-বেবি’র জন্ম দিলেন নারী

সন্তান পেতে চেয়েছিলেন। তবে শুধু এই কারণে বাধ্য হয়ে কোনো সম্পর্কে জড়াতে চাননি ৩৩ বছর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *