অস্পষ্টতা’ কেটেছে, এক দিন পর ইভানার বাবার মামলা নিল পুলিশ

ফিরিয়ে দেওয়ার পরদিন ইভানা লায়লা চৌধুরীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলা নিয়েছে শাহবাগ থানা–পুলিশ। ইভানার স্বামী ও চিকিৎসককে আসামি করে মামলাটি দায়ের করেছেন তাঁর বাবা আমানুল্লাহ চৌধুরী।

১৫ সেপ্টেম্বর শাহবাগের পরীবাগে শ্বশুরবাড়ি থেকে ইভানার (৩২) লাশ উদ্ধার করা হয়। তিনি রাজধানীর স্কলাসটিকা স্কুলের ক্যারিয়ার গাইডেন্স কাউন্সেলর হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
শাহবাগ থানায় শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মামলাটি করা হয়। এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ইভানার বোন ফারহানা চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘আব্বা গতকালও গিয়েছিলেন। থানা মামলা নেয়নি। আজ থানা থেকে ডেকে পাঠিয়েছিল। পরে রাতে মামলা হয়।’

এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যার পর প্রায় দুই ঘণ্টা অপেক্ষা করেও মামলা করতে পারেননি আমানুল্লাহ চৌধুরী। পরে তাঁরা আদালতে মামলা করার প্রস্তুতি নেন।

বিজ্ঞাপন
শনিবার রাতে করা মামলায় আসামিরা হলেন ইভানার স্বামী আবদুল্লাহ মাহমুদ হাসান ও ইভানার চিকিৎসক। মামলার এজাহারে আমানুল্লাহ চৌধুরী মেয়ের মৃত্যুর জন্য তাঁর (ইভানার) স্বামীর অন্য সম্পর্কে জড়িয়ে পড়াকে দায়ী করেছেন। পাশাপাশি আত্মহত্যায় প্ররোচিত করে এমন ওষুধ দেওয়ায় চিকিৎসককে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ওই চিকিৎসকের (নেফ্রোলজিস্টের) পরামর্শপত্র অনুযায়ী ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ইভানাকে গত এক বছর ঘুমের ওষুধ খাওয়ানো হচ্ছিল। ইভানা তাঁর বন্ধুদের জানান, প্রেমিকার সঙ্গে কথা বলার জন্য তাঁর স্বামী রুম্মান তাঁকে (ইভানাকে) ঘুমের ওষুধ খাওয়াতেন

Check Also

ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যা: বড় ভাইয়ের ফাঁসি, ছোট ভাইয়ের যাবজ্জীবন

ফরিদপুরে এক নারীকে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যার দায়ে শাহাবুদ্দিন খান নামে এক ব্যক্তিকে ফাঁসি এবং …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *