১২০০ বিদ্যালয়ে আবেদন, তবু শিক্ষক হতে পারলেন না তিনি

নবম বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় পাস করেন নরসিংদীর মনোহরদীর শাহনাজ পারভীন। গত ৩০ মার্চ বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তি জারি করলে ১ হাজার ২০০টি উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষক পদে আবেদন করেন তিনি। তাঁর বেসরকারি কলেজেও নিবন্ধন থাকায় ১৯টি কলেজে আবেদন করেন। মোট ১ হাজার ২১৯টি বিদ্যালয়-কলেজের আবেদন ফি, কম্পিউটার দোকানের খরচসহ সব মিলিয়ে প্রায় দেড় লাখ টাকা ব্যয় করেছেন। কিন্তু কোথাও শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাননি শাহনাজ পারভীন।

শাহনাজ পারভীনের বাবা নেই। তাঁরা পাঁচ ভাইবোন। তিন বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। ৩৬ বছর বয়সী শাহনাজ পারভীন বিয়ে করেননি। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি বাবার বাড়িতে যে অংশ (সম্পত্তি) পাব, তা ভাইদের দিয়ে টাকা নিয়েছি। এখন আমার আর কিছু রইল না।’৮ অক্টোবর দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রথম আলোর সঙ্গে কথা বলেন শাহনাজ পারভীন। যাঁরা আগে নিবন্ধন পেয়েছেন, তাঁদেরকে আগে নিয়োগ দেওয়ার দাবিতে ওই দিন ‘প্যানেলপ্রত্যাশী নিবন্ধিত শিক্ষক সংগঠন’ ব্যানারে আয়োজিত মানবন্ধনে অংশ নিতে এসেছিলেন তিনি।

এত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আবেদনের কারণ জানতে চাইলে শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘আমার সরকারি চাকরির বয়স পেরিয়ে গেছে। পরবর্তী সময়ে এনটিআরসিএতেও আমার আবেদনের সুযোগ না-ও থাকতে পারে। এবার আমার বিষয়ে উচ্চবিদ্যালয়ে ১ হাজার ৫০০টি পদ ছিল। এই নিয়োগের পর হয়তো আর পদ না-ও থাকতে পারে। আমি চেয়েছিলাম, বাংলার যে প্রান্তেই একটা পদ ফাঁকা থাকুক, সেটা যেন আমার হয়। একটা চাকরির আশায় এত টাকা খরচ করেছিলাম।’অভিযোগ করে এই চাকরিপ্রত্যাশী বলেন, দুই প্রতিষ্ঠানে সিট এখনো ফাঁকা। তারা বলেছে, সিট ফাঁকা, কিন্তু কেউ আবেদন করেননি। অথচ সেখানে তিনি আবেদন করেছিলেন। তাঁকে নেওয়া হয়নি।এ বিষয়ে এনটিআরসিএতে অভিযোগ করেছেন জানিয়ে শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘তারা এখনো আমাকে কিছু জানায়নি। এ ছাড়া নারী কোটায় সাড়ে ৮ হাজার পদ ফাঁকা ছিল, আমি নারী ছিলাম, তা-ও আমাকে নেওয়া হয়নি।’

৮ অক্টোবর দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা অর্ধশতাধিক বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পাওয়া এনটিআরসিএর সনদধারী চাকরিপ্রত্যাশী মানববন্ধনে অংশ নেন। তাঁদের মধ্যে অন্তত ছয়জনের সঙ্গে প্রথম আলোর কথা হয়। তাঁরা প্রত্যেকে জানান, শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার জন্য অনেকগুলো প্রতিষ্ঠানে আবেদন করেছেন। এনটিআরসিএ একটি আবেদনের মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া হলে তাঁরা আর্থিক ক্ষতির মধ্যে পড়তেন না। এতে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে এনটিআরসিএ।আগে নিবন্ধনপ্রাপ্তদের আগে চাকরি, এক আবেদনে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে চাকরির সুযোগ তৈরি হওয়াসহ বিভিন্ন দাবি নিয়ে ৮ অক্টোবর ঢাকার জাতীয় প্রেসক্লাবে মানববন্ধন করেন বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পাওয়া এনটিআরসিএর সনদধারী এই ব্যক্তিরা

Check Also

অস্ট্রেলিয়ায় ওমিক্রনের কমিউনিটি ট্রান্সমিশন হচ্ছে

অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে বড় শহর সিডনিতে মহামারি করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের কমিউনিটি ট্রান্সমিশন ঘটছে। ইতিমধ্যে পাঁচ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *