টুইটারে ঘৃণা–বিদ্বেষের শিকার মেগান

ডাচেস অব সাসেক্স মেগান মার্কেল বলেছেন, আত্মসংরক্ষণের প্রয়োজনেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এড়িয়ে চলেন তিনি। তাঁর এ কথায় যুক্তিও পাওয়া গেল সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে। তাঁকে লক্ষ্য করে টুইটারে ঘৃণ্য বক্তব্য ও ভুয়া প্রচারের সমন্বিত কর্মসূচি চালানোর তথ্য উঠে এসেছে নতুন এ প্রতিবেদনে।

টুইটারের অ্যানালাইটিকস সেবাদাতা বট সেনটিনেলের তথ্য অনুযায়ী, মেগান মার্কেল ও প্রিন্স হ্যারি দুজনকে লক্ষ্য করেই টুইটারে ঘৃণ্য বক্তব্য ছড়ানো হয়। এর মধ্যে মেগানকে লক্ষ্য করেই অপপ্রচার চালানো হয় ৮০ শতাংশের বেশি। যদিও প্রিন্স ও হ্যারি দুজনেই সুস্থ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারের পক্ষে প্রচারক।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের তথ্য অনুযায়ী বট সেনটিনেল হ্যারি ও মেগান দম্পতি সম্পর্কিত ১ লাখ ১৪ হাজার টুইট বিশ্লেষণ করেছে। এর মধ্যে ৮৩টি অ্যাকাউন্ট শনাক্ত করা হয়েছে, যেগুলো থেকে ৭০ শতাংশের বেশি সাসেক্সবিরোধী ভাইরাল টুইট করা হয়েছে।

Check Also

আবরারের পরিবারকে ১২ বছর মাসিক ৭৫ হাজার টাকা দেবে বুয়েট!

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) আগামী ১২ বছরের জন্য নিহত বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *