আমার ছেলে-স্ত্রীর শপথ, আমি কিছু করি নাই: আদালতে ওসি প্রদীপ

চাঞ্চল্যকর মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হ`ত্যা মামলায় বহিস্কৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে জড়িয়ে দেয়া অভিযোগপত্রকে মনগড়া, বানোয়াট ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে দাবি করে প্রদীপের আইনজীবী রানা দাশ গুপ্তের জেরার জবাবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব-১৫ এর সাবেক সহকারি পুলিশ সুপার খায়রুল ইসলাম বলেন, ‘সঠিক তদন্ত করে এবং সাক্ষীদের সরাসরি বক্তব্যে মেজর সিনহা হত্যাকান্ডে প্রদীপের সরাসরি সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। প্রদীপ সম্পূর্ণ নিরাপরাধ, নির্দোষ হওয়া সত্বেও স্বার্থান্বেষি মহলের পারস্পারিক যোগসাজসে অভিযোগপত্রে আসামী প্রদীপকে জড়ানোর দাবি সত্য নয়।

এ সময় কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকা ওসি প্রদীপ কুমার দাশ কান্না শুরু করেন। প্রদীপ বিচারকের উদ্দেশ্যে কান্নারত অবস্থায় বলেন, ‘স্যার, আমার ছেলের শপথ, আমার স্ত্রীর শপথ, আমি কিছুই করি নাই।’ এসময় আদালতের বিচারক ওসি প্রদীপকে বলেন, ‘আপনাকে আরও প্রশ্ন করব আপনি শান্ত হোন।’

আদালত সুত্র জানায়, আজ সোমবার (২৯ নভেম্বর) সকাল দশটার দিকে ৮ম ধাপে মামলার তদন্ত কর্মকর্তার অসমাপ্ত জেরা শুরু হয়। আসামী লিয়াকতের পক্ষে নিযুক্ত চট্টগ্রাম বারের সিনিয়র আইনজীবী চন্দন দাশের অনুপস্থিতিতে অ্যাডভোকেট আরিফুল ইসলাম অসমাপ্ত জেরার জবাবে তদন্ত কর্মকর্তা খায়রুল ইসলাম বলেন, ‘আমি মেজর সিনহা হত্যাকান্ডের ঘটনায় তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে পুরোদমে তদন্ত করেছি এবং তদন্তের মাঝখানে কোন বিরতি পড়েনি। মামলার সাক্ষীরা তদন্তকালে অনেক বক্তব্য দিয়েছেন। আমি তদন্তের স্বার্থে আমার বিবেচনায় সংক্ষেপ করে লিপিবদ্ধ করেছি এবং আমার তদন্তের ধরণ এরকম।’

পরে অ্যাডভোকেট রানা দাশ গুপ্তের দীর্ঘ জেরার জবাবে তদন্ত কর্মকর্তা আদালতে বলেন, সাক্ষী ছেনুয়ারা, হামজালাল, আলী আকবর, ছালেহ আহমদ ও বেবী বেগমেকে ওসি প্রদীপ বিভিন্ন মামলায় আসামী করেছেন। ওই সাক্ষীরা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন এবং তাদের আত্মীয়স্বজন ক্রসফায়ারের সম্মুখিত হয়েছেন- এমন দালিলিক প্রমাণ আছে। তদন্ত কর্মকর্তা আরও বলেন, প্রথমে টেকনাফ থানার তৎকালিন এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত ভিকটিম সিনহার ক্যামেরা এবং মোবাইল জব্দ করেন এবং পরবর্তীতে এসআই সাব্বির ও ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মানস বড়ুয়ার মাধ্যমে জব্দকৃত আলামত আমার হাতে আসে। ঘটনার দুইসপ্তাহ পর আমি হত্যাকান্ডের তদন্তের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত হই এবং এ কারণে আমি ভিকটিমের ক্যামেরা ও মোবাইল ফরেনসিক পরীক্ষার প্রয়োজনীয়তাবোধ করিনি।

Check Also

আবরারের পরিবারকে ১২ বছর মাসিক ৭৫ হাজার টাকা দেবে বুয়েট!

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) আগামী ১২ বছরের জন্য নিহত বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *