সবাই যখন পরীক্ষার হলে, তামান্না তখন মর্গে

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার দোল্লাই নবাবপুর সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী তামান্না আক্তার লিজা। সদ্য শুরু হওয়া এইচএসসি পরীক্ষার পরীক্ষার্থী ছিলেন তিনি। পরীক্ষার রুটিন অনুযায়ী বৃহস্পতিবার (০২ ডিসেম্বর) ছিল তার প্রথম পরীক্ষা। এদিন সকাল ১০টায় শুরু হওয়া পদার্থ বিজ্ঞান পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু বিধিবাম! বৃহস্পতিবার সকালে পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়া হয়নি তার। এইচএসসি পরীক্ষার প্রথম দিনে তার ঠিকানা হয়েছে চান্দিনা থানার লা`শ ঘরে।

কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় ভালবেসে বিয়ে করেন মাহবুব আলম নামের এক ছেলেকে। সেই স্বামীর বসত ঘরে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে থাকা তামান্না আক্তারের ম`রদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে পু`লিশ। এক সন্তানের জননী তামান্নার মৃ`ত্যু নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে। স্বামীর পরিবারের আত্মহ`ত্যা দাবি করলেও তামান্নার পরিবার বলছে এটি

হ`ত্যাকাণ্ড। ঘটনাটি ঘটেছে কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের বিচুন্দাইর গ্রামে। নিহত তামান্না আক্তার লিজা একই উপজেলার গল্লাই ইউনিয়নের সোনাকান্দা গ্রামের প্রবাসী আবুল কালাম আজাদের মেয়ে।

নি`হতের মা মাহিনূর আক্তার বলেন, তামান্নার স্বামীর পরিবার যৌতুকের জন্য আমার মেয়েকে বিভিন্ন ভাবে চাপ প্রয়োগ করতো। বুধবার রাতেও মেয়ে ফোন করে আমাকে জানায়, ‘মা আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) আমার পরীক্ষা দোয়া করবেন। তারা (স্বামীর পরিবার) আমাকে টাকা আনতে বলছেন।’ এই বলে আমার মেয়ে কান্না করতে থাকে।

পরদিন সকালে তারা আমার মেয়েকে হ`ত্যা করে ম`রদেহ ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে রেখে আত্মহ`ত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা করা হচ্ছে বলে দাবি তার। নি`হতের স্বামী মাহবুব আলমের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করলেও তার ব্যবহারৃত নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। তবে মাহবুব আলমের বাবা জাকারিয়া বলেন, সকালে আমরা কেউ বাড়িতে ছিলাম না। আমার স্ত্রী (মাহবুব এর মা) বাড়ি এসে দেখে তামান্না ঘরের দরজা বন্ধ করে ফাঁসিতে ঝুলে আছে।

Check Also

আবরারের পরিবারকে ১২ বছর মাসিক ৭৫ হাজার টাকা দেবে বুয়েট!

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) আগামী ১২ বছরের জন্য নিহত বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *